রংপুরে পান সুপারির দাম দ্বিগুন : বিপাকে ভোক্তারা

রংপুর

নিজস্ব প্রতিবেদক.

রংপুরে পান সুপারির দাম গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে বেড়েছে দ্বিগুন। শখের এ খাবারের দাম ক্রমবর্ধমান লাগাম ছাড়া হয়ে পড়ায় বিপাকে পড়েছেন রসনাবিলাসীসহ পান বিক্রেতারা। রংপুর জেলায় প্রায় ১৪ হাজার খিলিপান ব্যবসায়ী ছাড়াও বাসা বাড়িতে পানের চাহিদা প্রায় ১ কোটি।  সেই সাথে সুপারির চাহিদা রয়েছে প্রায় ৩০ লাখ পিস। বাজারে পান ও সুপারির সরবরাহ কম থাকায় মুল্য কিছুটা বেশী হলেও বাজারে  মুল্য দ্রুত কমবে বলে জানান ব্যবসায়ীরা।

আজ শনিবার সরেজমিন বিভিন্ন পানের বাজার ঘুরে দেখা যায়, ছোট ছোট পান বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৭০ টাকা দরে (৭৫ টি পান এক বিড়া)। একটু ভালো পান বিক্রি হচ্ছে ২শ’ থেকে ২৫০ টাকা দরে (৭৫ টি পান এক বিড়া)। বড় ও ভালোমানের পান বিক্রি হচ্ছে ৩শ’ থেকে ৩২০ টাকা দরে (৭৫ টি পান এক বিড়া)। এদিকে পানের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে সুপারির দামও।  ব্যবসায়ীর জানান, ভালে মানের বার্মার সুপারি (২২০টি) ১২শ’ থেকে ১৩শ’ টাকা, টেকনাফের সুপারি (২২০টি) ৯’শ থেকে ১ হাজার টাকা, লোকাল নরমাল সুপারি চলছে (২২০টি) ৮শ থেকে ৯শ টাকা।

পাইকারী পান ব্যবসায়ীরা জানান, এ সময় বাজারে পান সরবরাহ কম থাকায় দাম একটু বাড়তি থাকে। নগরীর মাহিগঞ্জ সাতমাথা বাজারে রিপন পান আড়তদার বুলু মিয়া  জানান, এসময় পানের বরজে পান কমে যায় ফলে বাজারে পান সরবরাহ কম থাকে। এজন্য মোকামেই পানের দাম বেশি।  তিনি আরও বলেন আমার আড়তে কুষ্টিয়া ও চুয়াডাঙ্গা থেকে পান আসে। গত কয়েক দিন থেকে মোকাম সেভাবে চাহিদা মত পান দিতে পারছে না। যা আসছে তারও দাম বাড়িয়ে ধরছে। তবে এ বাজার বেশী দিন থাকবে না। নতুন পান বাজারে আসা শুরু করলে দাম স্বাভাবিক হয়ে যাবে।

নগরীর সিটি বাজারের সুপারি ব্যবসায়ী আলম  জানান, এসময় গাছে ফুল আসা শুরু করছে। তাই পাকা ও কাঁচা সুপারির সরবরাহ কম থাকায় দাম একটু বেশী। বাজারে মজা সুপারির দাম একটু কম। তবে জাগ ছাড়া পাকা সুপারির চাহিদার তুলনায় সরবরাহ কম থাকায় দাম একটু বেশী।

সেন্ট্রাল রোডের খিলি পান ব্যবসায়ী আ: রাজ্জাক  জানান, বর্তমান একটি খিলি পান বিক্রি করছি ৫ টাকায়। এতে আমাদের পোষাচ্ছে না। কেননা একটি ভাল মানের পান কিনতে হচ্ছে ৩ টাকা  সুপারি পড়ছে ৫ টাকা । এর সাথে বিভিন্ন মসলা আছে। একটি সুপারি থেকে চারটি পান বিক্রি করা যায়। এতে দোকান খরচ বাদ দিলে লাভ টেকে না আমাদের।

এদিকে খিলি পান ব্যবসায়ী সমিতির আহবায়ক মো: ইব্রাহীম  জানান, এসময় পান সুপারির দাম একটু বেশী থাকে।  তবে এত বেশী নয়। রংপুর জেলায় প্রায় ১৪ হাজার খিলি পান ব্যবসায়ী আছে। তারা সিন্ডিকেটের কাছে জিম্মি হয়ে আছে। আমাদের এখানে রংপুর অঞ্চলের পান ছাড়াও রাজশাহী, বিরামপুর, ভেড়ামারা, চুয়াডাঙ্গা ও চট্টগ্রামের পার্বত্য এলাকা থেকে বরজ ও গাছ পান আসে। বড় বড় পান সুপারি ব্যবসায়ীরা বাজারে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে দাম বাড়িয়ে দেয়। বেশী মুনাফার আশায় কৃত্রিম সংকট তৈরি করতে বরজ থেকে পান ভাঙ্গা কমিয়ে দেয় এবং সুপারি মজুদ করে স্বল্প পরিসরে বাজারে সরবরাহ করে। এর ফলে অনেক ছোট খিলিপান ব্যবসায়ী লাভ না হওয়ায় পথে বসেছে।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *