ফুলবাড়ীতে ঝুঁকিপূর্ণ কাঠের সাঁকো দিয়ে হাজারা মানুষের পারাপার

রংপুর

জাহাঙ্গীর আলম, ফুলবাড়ী কুড়িগ্রাম.

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার সদর ইউনিয়নের মাত্র দেড় কিলোমিটার দুরে চন্দ্রখানা ফুলসাগর আবাসন সংলগ্ন নীলকমল নদীর ওপর কাঠের তৈরি ঝুঁকিপূর্ণ সাঁকো দিয়ে র্দীঘদিন ধরে পারাপার হচ্ছে এলাকাবাসী। নষ্ট পাটাতন ও রেলিংবিহীন ঝুঁকিপূর্ণ সাঁকো দিয়ে চলাচল করতে প্রতিনিয়ত দুঘর্টনার শিকার হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। সেতুটি দ্রুত সংস্কার ও নতুন একটি সেতু নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী। জানাগেছে, চন্দ্রখানা আবাসনের ১৮০টি পরিবারের ৪০০ লোকজনসহ উপজেলার মাঝিটারী, বালাটারী, কুমারটারী ও বিলুপ্ত দাসিয়ারছড়া এলাকার বিশ  হাজারেরও বেশি মানুষ যাতায়ত করে আবাসন সংলগ্ন নীলকমল নদীর উপর নির্মিত  কাঠের সাঁকো দিয়ে। খুব অল্প সময়ে এই সাঁকো দিয়ে উপজেলার স্কুল-কলেজে যাতায়াত করে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা। বর্তমানে পাটাতন নষ্ট হওয়ায় রেলিংবিহীন  ঝুঁকিপূর্ণ সাঁকো দিয়ে চলাচল করতে প্রতিনিয়ত দুঘর্টনার শিকার হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। এ ছাড়াও এই ঝুঁকিপূর্ণ কাঠের সেতু দিয়ে জরুরি চিকিৎসা সেবাসহ উৎপাদিত কৃষিপণ্য সদরের বাজারগুলোতে বাজারজাত করেন কৃষকরা। আবাসনটি নির্মাণের এক যুগ পেরিয়ে গেলেও আজ পর্যন্ত আবাসনবাসীর চলাচলের জন্য আজবধি একটি কংক্রিটের ব্রিজ নির্মাণ হয়নি। তাই দ্রুত একটি ব্রিজ নির্মাণের জন্য জোর দাবি তুলেছেন আবাসনবাসী। এলাকাবাসী মনসুর আলী জানান,জমির আবাদ দেখাশোনার জন্য এই কাঠের সেতু দিয়ে যাওয়া-আসা করতে হয় বর্তমানে সেতুটির অবস্থা খুবই খারাপ  হওয়ায় চলাচলে খুব কষ্ট হয়েছে। আবাসনবাসী মানিক চন্দ্র রায় জানান, আমরা দীর্ঘদিন ধরে এই আবাসনে বসবাস করে আসছি আমাদের এই যাতায়াতের সাঁকোটি প্রতিবছর ভেঙে যায়, এই সাঁকো দিয়ে আশেপাশে তিন গ্রামের মানুষ চলাচল করে বর্তমানে এটির বেহাল অবস্থা। সরকারের কাছে আমাদের বিশেষ অনুরোধ এখানে একটি কংক্রিট সেতুর দেয়া হোক।  শবরী রানী জানান, অনেকদিন থেকে আমরা আবাসনে বসবাস করে আসছি, উপজেলা শহরে যাওয়ার জন্য আমাদের এই একটিমাত্র কাঠের সাঁকো,সেটি বর্তমানে খুবই ঝুঁকিপূর্ণ আছে আমাদের বাচ্চা-কাচ্চা চলাফেরার খুব কষ্ট্,আমি সরকারের কাছে আকুল আবেদন জানাচ্ছি এখানে একটি কংক্রিটের ব্রিজ স্থাপনের জন্য। আবাসনে বসবাসকারী বীর মুক্তিযুদ্ধা জহির আলী জানান, আমি দীর্ঘ ১৩ বছর থেকেই আবাসনে থাকি আবাসন থেকে ফুলবাড়ী যাওয়ার জন্য যে সাঁকোটি আছে সেটির খুব খারাপ অবস্থা। আমি সরকারের কাছে আকুল আবেদন জানাই এখানে একটি ব্রিজ দেওয়ার জন্য। ফুলবাড়ী সদর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান হারুন অর রশীদ হারুন জানান, আবাসনগামী রাস্তায় একটি কাঠের সাঁকো রয়েছে সেটি অতিবৃষ্টির কারণে বর্তমানে খুবই ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে। আমি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি সেখানে ব্রিজ নির্মাণের জন্য। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তৌহিদুর রহমান জানান, আমরা খবর পেয়েছি আবাসনের কাঠের সাঁকোটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়েছে, আমরা ইতিমধ্যেই সাঁকোটি মেরামতের উদ্যোগ নিয়েছি ভবিষ্যতে এখানে যেন একটি ব্রিজ হয় সেজন্য আমরা উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করব।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *